শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

যশোরের মনিরামপুরে সরকারি আইন অমান্য করার প্রতিবাদ করায় ইউপি চেয়ারম্যান লাঞ্চিত! ? Matrijagat TV

আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টার।।
  • আপডেট টাইম শনিবার, ২ মে, ২০২০

 

যশোরের মণিরামপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি আদেশ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এক দোকানির হাতে মশ্মিমনগর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন লাঞ্ছিত । ঘটনাটি মশ্বিমনগর ইউনিয়নের পারখাজুরা বাজারের।
ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ শরিফীকে জানানো হলেও তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি বলে অভিযোগ চেয়ারম্যানের।
অভিযোগ করা হচ্ছে, দোকানপাট বন্ধ রাখার সরকারি আদেশ থাকলেও ওই বাজারের তেল ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান দোকান খোলা রেখে লোক সমাগম করছিলেন।

শুক্রবার (১ মে) সকাল নয়টার সময় আনসার-ভিডিপি সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে লুৎফর রহমানকে দোকান বন্ধ করতে বলেন চেয়ারম্যান আবুল হোসেন। ওই সময় দোকান বন্ধ না করে উল্টো লুৎফর রহমান, তার বাবা জামাল উদ্দিন ও ছোটভাই অপু মিলে চেয়ারম্যানকে লাঞ্ছিত করেন। চেয়ারম্যান বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ শরিফীকে জানালে তিনি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুফলচন্দ্র গোলদারকে ঘটনাস্থলে পাঠান। তিনি সবকিছু শুনে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে বিস্তারিত ইউএনও-কে জানিয়ে ফিরে আসেন।

চেয়ারম্যান আবুল হোসেনের অভিযোগ, লুৎফর মণিরামপুর এসিল্যান্ড অফিসের কর্মচারী হওয়ায় ক্ষমতা দেখিয়ে দোকান বন্ধ না করে তার সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ান। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে ফিরে যাওয়ায় ইউনিয়নের দোকানদাররা এখন আর চেয়ারম্যানের কথা শুনছেন না। আজ (শনিবার) দুপুরেও লুৎফর দোকান খুলে রেখেছেন।

তার দেখাদেখি অন্যরাও দোকান খুলে বসে আছেন। আবুল হোসেন বলেন, ‘ইউনিয়নের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির সদস্য আমি। আমি নিজের কাজে ওখানে যাইনি। সরকারের নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে লুৎফরকে দোকান বন্ধ করতে বলেছি। কথা না শুনে উল্টো সে আমার উপর চড়াও হয়েছে। অন্য দোকানদাররা যখন দেখলো দোকান খোলা রাখলেও লুৎফরের কোনো সাজা হচ্ছে না, তাই তারাও দোকান খুলে বসে আছে।

বিষয়টি ইউএনও-কে জানানোর পরও কোনো ফল আসেনি। তিনি পদক্ষেপ না নেওয়া পর্যন্ত আমি আর এই ব্যাপারে কোনো দায়িত্ব পালন করবো না,’ বলেন চেয়ারম্যান।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চেয়ারম্যান আবুল হোসেন ইউএনওর দোহাই দিয়ে দোকান বন্ধ করতে বলার পর ইউএনও-কে নিয়েও কটূক্তি করেন লুৎফর। এক পর্যায়ে তিনি চেয়ারম্যানের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী লুৎফরের ক্ষমতার উৎস কোথায় তা জানার আগ্রহ স্থানীয়দের।

এদিকে, ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর মশ্মিমনগর ইউনিয়নে কেউ আর লকডাউন মানছেন না। শুক্রবার সন্ধ্যায় মুসল্লিদের মসজিদে ভিড় করতে নিষেধ করায় চাকলা এলাকায় লুৎফর রহমান নামে এক মসজিদের মুয়াজ্জিনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে বলে জানান চেয়ারম্যান আবুল হোসেন।
তবে মণিরামপুর এসিল্যান্ড অফিসের একটি সূত্র জানিয়েছে, শুক্রবার দোকান বন্ধ করা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান আবুল হোসেন আগে লুৎফরের বাবার গায়ে হাত তোলেন। তারপর পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়।
এই বিষয়ে কথা বলতে চাইলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুফলচন্দ্র গোলদারের মোবাইলে কয়েকদফা ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ শরিফী বলেন, ‘চেয়ারম্যান ঘটনাটি আমাকে বলেছেন। বিষয়টি তদন্তে উপজেলার এক কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি রিপোর্ট দিলে এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
করোনা সংক্রমণরোধে সরকারি আদেশ না মেনে কেউ দোকান খোলা রাখলে প্রশাসন আইনগত ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান ইউএনও।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
© All rights reserved © Matrijagat TV
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
matv2425802581